১১ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৯শে সফর, ১৪৪৩ হিজরি



সাঁকো ভেঙে ১২ গ্রামবাসীর ভোগান্তি

কুশিয়ারা ভিউ ডেস্ক
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৩১ আগস্ট, ২০২১

রংপুর জেলার তারাগঞ্জ উপজেলার আলমপুর দর্জিপাপাড়া গ্রামে চিকলী নদীর বাঁশের সাঁকো ভেঙে ১২ গ্রামের মানুষ ভোগান্তিতে পড়েছে। ওই নদীর ভাঙন রোধে বাঁধ ও ব্রিজ নির্মাণের দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী।

ভুক্তভোগীরা পানি উন্নয়ন বোর্ডসহ বিভিন্ন দপ্তরে কয়েকবার লিখিত আবেদন করার পরও কোনো সহযোগিতা না পাওয়ায় চরম দুর্ভগে পড়েছে এলাকাবাসী।

সরেজমিন গিয়ে জানা গেছে, দর্জিপাড়া গ্রামে প্রায় কয়েক লাখ মানুষের বসবাস। গত বছররের চার দফা বন্যায় উজান থেকে নেমে আসা পানির ঢলে চিকলী নদীর আশপাশের ফসলি জমি ও বসতভিটা, কবরস্থানসহ অনেক আবাদি জমি চিকলী নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

এ ছাড়া দর্জিপাড়া গ্রাম থেকে ভিমপুর শাইলবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একমাত্র পথ চিকলী নদীর বাঁশের সাঁকো ভেঙে চড়ম দুর্ভোগে পড়েছে ওই এলাকার সাধারণ মানুষ।

এলাকার বাসিন্দা রংপুর জর্জ কোর্টের অ্যাডভোকেট তবারক হোসেন ও তারাগঞ্জ কলেজ মসজিদের ইমাম ওই এলাকার বাসিন্দা মমতাজ উদ্দিনসহ কয়েকজন জানান, আমাদের ১২-১৩টি গ্রামের মানুষ গবাদিপশু নিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় বসবাস করছি। এ অবস্থায় নদীর ভাঙন রোধে বাঁধ এবং ব্রিজ নির্মাণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে অচিরেই গ্রামগুলো নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাবে।

এ বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী কৃষ্ণ কমল রায় বলেন, চিকলী নদীর ভাঙন রক্ষায় আমাদের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করছি,খুব দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

রংপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য আবুল কালাম আহসানুল হক চৌধুরী ডিউক বলেন, ভাঙন রোধ ও ব্রিজ নির্মাণে ভাঙনকবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছি। খুব অল্প সময়ের মধ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। নদীর বাঁধ ও ব্রিজ নির্মাণের বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাথে কথা বলছি।






এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ





















© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
themesbazar_brekingnews1*5k