১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২৫শে রবিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি



হিমোগ্লোবিনের অভাব পূরণে কচুশাক খান

কুশিয়ারা ভিউ ডেস্ক
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০২১

কচু একটি গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টিকর সবজি। এ শাকে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ‘এ’, ‘বি’ ও ‘সি’, ক্যালসিয়াম, লৌহ ও অন্যান্য পুষ্টি উপাদান রয়েছে।

কচুশাক দুই ধরনের হয়ে থাকে- সবুজ কচুশাক ও কালো কচুশাক। সবুজ কচুশাকের চেয়ে কালো কচুশাক অনেক বেশি পুষ্টিকর। সহজে পাওয়া যায় এই সবজির রয়েছে নানা স্বাস্থ্যগুণ। আয়রন সমৃদ্ধ খাবারের কথা বলতে গেলে প্রথমেই আসে কচুশাকের কথা।

স্বাস্থ্যবিষয়ক এক প্রতিবেদনে বলা হয়, কচুশাকে আছে প্রোটিন, চর্বি, ক্যালসিয়াম, শর্করা, আয়রন, খাদ্যশক্তি, ভিটামিন এ, বি-৬ ও সি সাধারণ কচুর ডগা এবং কালো রংয়ের কচুশাকে আয়রন থাকে প্রচুর পরিমাণে। রক্তশূন্যতায় ভোগা রোগীদের জন্য কচুশাক খাওয়া একরকম আবশ্যক।

কারো যদি হিমোগ্লোবিনের সমস্যা হয়ে থাকে, তাকে কচুশাকের কথা বলা হয়ে থাকে। কচুশাকে আয়রন রয়েছে, যা আমাদের রক্তে অক্সিজেন পরিবহনে সহায়তা করে। শরীরে যদি হিমোগ্লোবিনের অভাব হয়, তখন নানা রকম সমস্যা দেখা দিতে পারে। কাজেই এ সময় যদি কচুশাক খাওয়া হয়, তাহলে আয়রনের ঘাটতি পূরণ হয় ।

পুষ্টিবিদ বলেন, কালো কচুশাক ও কচুশাকের ডগায় আয়রন পর্যাপ্ত পরিমাণে রয়েছে এবং এতে ভিটামিন সি রয়েছে। এর ফলে আমরা যখন আয়রন গ্রহণ করছি, এতে ভিটামিন সি থাকায় আমাদের শরীরে ভালোভাবে কাজে লাগছে। শাকে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ। এটা আমাদের দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে সাহায্য করে। এতে রয়েছে ম্যাঙ্গানিজ, ফ্ল্যাবোনয়েড নামক বিভিন্ন রকমের উপাদান, যা আমাদের রোগ প্রতিরোধ করতেও সহায়তা করে এবং আমাদের হাড়ের স্বাস্থ্যও ভালো রাখে।

কচুশাকে ফ্ল্যাবোনয়েড থাকায় এবং বিভিন্ন রকম ভিটামিন-মিনারেল থাকায় হৃদরোগ থেকে আমাদের রক্ষা করে। তবে অনেকের বিভিন্ন রকম সমস্যার কারণে কচুশাক খেলে গলা ধরার ভাব থাকে, তবে এ জিনিসটি খেয়াল রাখতে হবে, কচুশাক বা যেকোনো শাক যখন রান্না করবেন, তখন একটু ভিজিয়ে রাখবেন, ভিজিয়ে রেখে যখন আপনি রান্না করবেন, তখন এতে যেহেতু ভিটামিন এ থাকে, সামান্য পরিমাণ তেল দিতে হবে। কারণ, ভিটামিন এ না হলে কাজে লাগবে না। আপনি যখন কচুশাক খাবেন, সেটা বিভিন্নভাবে খাওয়া যেতে পারে। বাচ্চাদেরও কচুশাক খেতে অভ্যস্ত করবেন। এতে তাদের শরীর যেমন ভালো থাকবে, তাদের ভেতরে রোগ প্রতিরোধ শক্তিও তৈরি করবে।

ছোটবেলা থেকে কচুশাক খেলে হিমোগ্লোবিনের অভাবে ভুগবে না। বিশেষ করে কিশোরী যারা রয়েছে, তাদের আয়রনযুক্ত খাবারের মধ্যে যদি কচুশাক যুক্ত করা হয়, যারা আয়রনের সমস্যায় ভুগে থাকে, তাদের এ সমস্যাগুলো হবে না। কাজেই কচুশাক খেলে শরীর যেমন ভালো থাকবে, আপনারা কর্মক্ষম হবেন এবং বিভিন্ন রোগ থেকেও মুক্ত থাকবেন।

যাদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা আছে, তারা প্রচুর কচুশাক খেতে পারেন। কারণ কচুতে আছে অনেক আঁশ। যা খাবার সহজে হজম করতে সাহায্য করে। কচুশাক সারা দেহে অক্সিজেনের সরবরাহ বজায় রাখতে জুড়ি নেই। রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা কমে গেলে এমনিতেই শরীরে অক্সিজেনের সরবরাহ কমে যায়। সেই সরবরাহ সচল রাখতে কচুশাক অনেক বেশি কার্যকর।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে কচুশাক দারুণ ভূমিকা রাখে। এককভাবে কোনো নির্দিষ্ট অঙ্গপ্রত্যঙ্গের রোগের জন্য এই শাক কাজ না করলেও অন্যভাবে পুরো শরীরেরই উপকার করে। মাঝে মাঝে সামান্য গলা চুলকানো ছাড়া কচু শাকের কোনো পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই বললেই চলে। শাকে যতটুকু ক্ষতিকর অক্সালিক অ্যাসিড থাকে তা এক রাত পানিতে ভিজিয়ে রাখলেই চলে যায় ।






এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ





















© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
themesbazar_brekingnews1*5k